সহজপাঠ উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক উৎসব

9

প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হলো সহজপাঠ উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক উৎসব। বাংলা সংস্কৃতি আন্দোলনের পুরোধা ব্যক্তিত্ব ও রবীন্দ্র বিশেষজ্ঞ বলে খ্যাত প্রয়াত ওয়াহিদুল হকের ৮৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর বাংলা একাডেমির আব্দুল করিম সাহিত্য বিশারদ মিলনায়তনে আয়োজন করা হয় বিদ্যালয়টির বার্ষিক উৎসব।

শুক্রবার (১৬ মার্চ ২০১৮) দুপুর থেকে মুখরিত হয়ে ওঠে বাংলা একাডেমির আব্দুল করিম সাহিত্য বিশারদ মিলনায়তনের বাইরের প্রাঙ্গণ। ছোট ছোট শিশুদের আঁকা ছবিতে সাজানো হয় চারপাশ। অভিভাবক আর দর্শণার্থীর আগমনে শিশুদের চোখে মুখে আনন্দ ছিল দেখার মতো। পুরো বাংলা একাডেমি যেন প্রাণ পায়।

বিকাল গড়িয়ে সন্ধ্যা হতেই শুরু হয় অনুষ্ঠানের মূল আয়োজন। সহজপাঠের শিশুদের মঞ্চ পরিবেশনায় মুখরিত হয়ে ওঠে মিলনায়তন। পরিবেশিত হয় গ্রামবাংলার মূলধারা থেকে সংগ্রহ করা নাচ ও গান। উৎসবে ছিল যাত্রা পরিবেশন। সে আয়োজনে রবীন্দ্রনাথের নাটক ‘মুকুট’ পরিবেশন করা হয়। এছাড়াও সহজপাঠের শিশুরা অংশ নেয় কয়েকটি দেশের লোকজ পরিবেশনায়।

মঞ্চ পরিবেশনার আগে শ্রেণিকক্ষে শিশুদের কাজের অংশ হিসেবে আঁকা ছবি থেকে নির্বাচিত কিছু ছবি নিয়ে আয়োজন করা হয় একটি প্রদর্শনীর। প্রদর্শনীটি উদ্বোধন করেন বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী রফিকুন নবী। প্রদীপ প্রজ্বলন করে এবং নিজের হাতে ছবি এঁকে প্রদর্শনীটি উদ্বোধন করেন শিল্পী। এরপর শিশুদের আঁকা ছবির গ্যালারী ঘুরে ঘুরে দেখেন তিনি।

এরপর শুরু হয় মঞ্চ পরিবেশনা। রবীন্দ্র সংগীতে বিশেষজ্ঞ বলে খ্যাত বাংলাদেশের লেখক, সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব প্রয়াত ওয়াহিদুল হকের ৮৫তম জন্মবার্ষিকীর শুভেচ্ছা জানিয়ে মঞ্চ পরিবেশনা শুরু করেন সহজপাঠ উচ্চ বিদ্যালয়ের সচিব সিদ্দিক বেলাল।

তিনি বলেন, ‘শিশুদের প্রকৃত মেধা বিকাশে আমরা একটু ভিন্ন কিছু করার চেষ্টা করেছি। তারই ধারাবাহিকতায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ‘সহজপাঠ উচ্চ বিদ্যালয়’। আমরা ৬ থেকে ১৩ বছর বয়সী ছেলে-মেয়ে নিয়ে যাত্রা শুরু করেছে। আনন্দপূর্ণ পরিবেশে শিশুকে তার মেধার চর্চা করার সুযোগ দেয়াই আমাদের লক্ষ্য। শিশু সবকিছুই শিখবে, তার নিজের মতো করে আনন্দঘন পরিবেশে।’

দেশের ভবিষ্যত নাগরিকদের সামূহিক বিকাশের লক্ষ্যে মানবিক শিক্ষার প্রসারে সবার সহযোগিতা কামনা করে শেষ হয় সহজপাঠ উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক উৎসব ২০১৮।