ভাঙ্গা হাড় জোড়া লাগায় বোতাম ফুল

1455

বোতাম ফুলকে ইংরেজিতে Globe Amaranth বা Bachelor Button বলা হয়। এর বৈজ্ঞানিক নাম হলো Gomphrena globosa। এ ফুল Amaranthaceae পরিবারের Gomphrena গণের একটি উদ্ভিদ।

ইংরাজি ব্যাচেলরস্‌ বাটন্‌ নামের ঘটনা হল, এক সময় ইউরোপে জামায় বোতামফুল লাগিয়ে যুবক ছেলে বোঝানোর চেষ্টা করতো যে সে মেয়ে খুঁজছে। এই ফুল বেশ কিছুদিন টিকে থাকে, তাই তারা বেশ খানিকটা সময় পেতো প্রেমিকা যোগাড়ের জন্যে। এই কাণ্ড তাহিতি-হাওয়াই দ্বীপের মেয়েরা কানে জবা ফুল গুঁজে, আর প্রাচীনকালে ব্রাজিলের মেয়েরা রাতের বেলা দীর্ঘ-ঈ-কারের মতো চুল ফুলিয়ে তার ভেতর ঢুকিয়ে রাখতো জোনাকি।

এই বোতাম ফুলের যে অংশকে ফুল বলা হয় তা আদতে ফুল নয়। তা আসলে মঞ্জরীপত্র যাকে উদ্ভিদবিদ্যার ভাষায় ইংরাজিতে বলি “ব্র্যাক্ট” বা রূপান্তরিত পত্র।

উদ্ভিদ এই রূপান্তরিত পত্রকে কীট পতংগ আকর্ষণের কাজে ব্যবহার করে। এখানে চারদিকে যে ছোট ফুল দেখা যাচ্ছে, সেগুলিই প্রকৃত ফুল, যেমনটা দেখে পাই বাগানবিলাসে।

ঝোপাল গাছ, ৫০-৬০ সেমি পর্যন্ত উঁচু হয়। পাতা সরু, ২ সেমি চওড়া, দেখতে অনেকটা মেহেদি পাতার মত। ফুল উলের জামায় যেমন বোতাম থাকে ঠিক সেরকম গড়নের। খোসা ছাড়ানো সুপরির মত। লম্বা ডাটায় গোল গোল মঞ্জুরি, খাড়া। বেগুনি, হালকা বেগুনি ও সাদা রঙের ফুল। ঘ্রাণহীন। বর্ষা ও শীতে ফোটে। বংশ বিস্তার মূলত বিজের মাধ্যমে হয়। শুকিয়েও রাখা যায় ফুল। গ্রামে অনেকের বইয়ের পাতায় অসময়ে এই ফুলের চ্যাপটা শুষ্ক ভার্সন দেখতে পাওয়া যায়! বিশেষ করে মেয়েদের বইএ।

নানান ভেষজ ব্যাবহারের মধ্যে- ব্যাথা উপশম বা শল্যকরণের পূর্বে অবশ করায় এর ব্যাবহার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ও বহুল প্রচলিত। গ্রামাঞ্চলে মেয়েদের নাক ও কান ফুটানোর আগে এই ফুল ডাটা সমেত বেটে নাকে ও কানে লাগানো হয়। এতে করে সুঁই ফুটানোর সময় ব্যাথা হয় না। ভাঙ্গা হাড় জোড়া লাগাতেও এর ব্যাবহার হয়।

কাটা দাগ বা পোড়া দাগ দূরীকরণে, চামড়ায় স্বাভাবিক বর্ণ ফিরিয়ে আনতে এই ফুলের ব্যাবহার বহু পুরনো। বৈদিক যুগে এই পদ্ধতিকে সবর্ণকরণী বলা হত, যা এখন প্লাস্টিক সার্জারি নামে পরিচিত।