গোলাপের নিজস্ব কোন গন্ধ নেই

1083

গোলাপ এক প্রকার সুপরিচিত ফুল যা আধুনিক মানুষের কাছে সৌন্দর্যের প্রতীক ও ভালোবাসার প্রতীক হিসেবে সমাদৃত। Rosaceae পরিবারের Rosa গণের এক প্রকারের গুল্ম জাতীয় গাছে গোলাপ ফুল ফুটে থাকে। প্রায় ১০০ প্রজাতির বিভিন্ন বর্ণের গোলাপ ফুল রয়েছে।

গোলাপ পাঁপড়ির গড়ন ও বিন্যাসে একরূপ নান্দনিকতা রয়েছে যা মানুষকে আকৃষ্ট করে। সুগন্ধী গোলাপের ঘ্রাণও মানুষের প্রিয়। তবে গোলাপের নিজস্ব কোন গন্ধ নেই। গন্ধ উৎপাদনের কোন ক্ষমতা গোলাপের নেই। গোলাপীবর্ণ ছাড়াও নানা বর্ণের গোলাপ জন্মে থাকে। যেমন লাল, হলুদ, সাদা, সবুজ ইত্যাদি। “গার্ডেন রোজ” নামে বিভিন্ন হাইব্রিড গোলাপের উৎপাদন ও করা হচ্ছে। যেগুলো একই সাথে একই ফুলের পাপড়িতে দুই বা ততোধিক রংয়ের হতে পারে।

গোলাপ গাছের কাণ্ডে কাঁটা থাকে। এর পাতার কিনারাতেও ক্ষুদ্র কাঁটা রয়েছে। গোলাপের আদি নিবাস এশিয়া মহাদেশে। অল্প কিছু প্রজাতির আদি বাস ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা, ও উত্তরপশ্চিম আফ্রিকা মহাদেশে। ফুলের সৌন্দর্য ও সুবাসের জন্য গোলাপ বিশ্বজুড়ে বিখ্যাত।

কয়েক জাতের বিদেশী গোলাপ
১. পাপা মিলাঁ ২. আইসবার্গ ৩. রোজ গুজার্ড ৪. বেংগলি ৫. কুইন এলিজাবেথ ৬. জুলিয়াস রোজ ৭. ডাচ গোল্ড ৮. সানসিল্ক ৯. কিংস র্যা নসন, উল্লেখযোগ্য।

কয়েক জাতের বাংলাদেশী গোলাপ
১. ফাতেমা ছাত্তার ২. শিবলী ৩. রাহেলা হামিদ ৪. পিয়ারী ৫. ভাসানী ৬. শের-এ-বাংলা ৭. ১৯৫২ ৮. জয়ন্তি, উল্লেখযোগ্য।

গোলাপ ফুল যে সৌন্দর্যের প্রতীক, তাই নয়। এর রয়েছে বহুমুখী ব্যবহার। গোলাপের পাপড়ি থেকে জ্যাম, জেলি প্রস্তুত করা হয়। পার্সি, চীন ও ভারতে গোলাপজলের প্রচলন ঘটে। সুগন্ধির জন্য গোলাপজল ব্যবহার করা হয়।গোলাপ ফুলের সুবাসকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন প্রসাধনী সামগ্রী তৈরি করা হয়। যেমন: পারফিউম, সাবান ইত্যাদি। গোলাপে গেনারিয়ল নামে একটি অ্যারোম্যাটিক অ্যালকোহল জাতীয় পদার্থ পাওয়া যায়। যা এর সুগন্ধের জন্য দায়ী। মেয়েদের অন্তর্বাস ও ন্যাপকিনেও গোলাপের সুগন্ধ ব্যবহার করা হয়। অর্নামেন্টারি উদ্ভিদ হিসেবে গোলাপের ব্যবহার উল্লেখযোগ্য। গোলাপ থেকে তেলও উৎপাদিত হয়।